গর্ভধারণে দাঁতের প্রভাব

Posted on July 8, 2011

0


প্রযুক্তির যুগে আবহমানকালের সেই কথা আরো একবার মনে করতে হবে, ‘দাঁত থাকতে নিতে হবে দাঁতের যত্ন’। তা ছাড়া মেসোপটেমিয়া সভ্যতার সময়কালে রচিত ‘গিলগামেস’ মহাকাব্যের শুরুতেই দাঁতে পোকা লাগার এক রূপময় কাহিনীর পরিচয় পাওয়া যায়। শুধু মহাকাব্যের পটভূমি নয়, এককালের ধারণা ছিল দাঁতে পোকা লাগলে সেই পোকা তুলে দাঁতের আরোগ্য লাভ করা যায়। অবশ্য বিজ্ঞানের ক্রমবিকাশের ফলে মানুষ জানতে পেরেছে দাঁতের পোকা বলতে আসলে কিছুই নেই। সেদিনের দাঁতের পোকা এখনকার জীবাণু। বর্তমানে প্রত্যেক মানুষই দাঁতের যত্নাত্তিতে কমবেশি সচেতন। তার পরও নারীদের প্রতি দাঁতের বিশেষ যত্ন নেওয়ার কথা বলছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা।
চিকিৎসাবিজ্ঞানের গবেষকদের মতে, নারীদের গর্ভধারণের ক্ষেত্রে দাঁতের যত্ন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। যেসব নারী সন্তান নিতে চান, তাঁদের মুখের ভেতরের স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন হওয়া জরুরি।
বিশেষ করে দাঁতের ফাঁকে লুকিয়ে থাকা জীবাণু নাশ করতে না পারলে গর্ভধারণে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে।
সম্প্রতি সুইডেনে এ বিষয়ে গবেষকদের এক সভা হয়েছে। সেখানে চিকিৎসকরা বলেছেন, দাঁতের ফাঁকের জীবাণুর কারণে মাঢ়িতে নানা ধরনের রোগ হয়ে থাকে। আর মাঢ়ির রোগের কারণে গর্ভধারণ হয়ে ওঠে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। যেসব নারী দাঁত, মাঢ়ি, চোয়াল ও জিহ্বার রোগে আক্রান্ত তাঁদের গর্ভধারণের ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছেন চিকিৎসকরা। তাঁরা বলছেন, স্বাভাবিকভাবে যে সময় গর্ভধারণ করার কথা, মাঢ়ির রোগের কারণে ওই সময় থেকে দুই মাস দেরি হয়ে যেতে পারে। এর ফলে নারীদের শারীরের স্বাভাবিক কর্মশক্তি হ্রাস পায়।
সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ায় এক গবেষণায় দেখা গেছে, সাড়ে তিন হাজারেরও বেশি নারী এই মাঢ়ির রোগে আক্রান্ত। এ বিষয়ে গবেষকদলের প্রধান ও ওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রজার হার্ট বলেন, ‘এখন পর্যন্ত নতুন এ গবেষণার কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়নি। তবে মাঢ়ির রোগ কোনো নারীর গর্ভধারণের জন্য প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। আমরা আমাদের গবেষণার প্রথম প্রতিবেদনে পরামর্শ দিয়েছি, গর্ভধারণ করতে চান_এমন নারীদের আবশ্যিকভাবে দাঁতের যত্ন নিতে হবে।’
যুক্তরাজ্যের ডা. এলান পাসি বলেন, যাঁরা সন্তান ধারণ করতে চান, তাঁদের অন্তত এ কথা ভাবতে হবে, তাঁর 
স্বাস্থ্যের ওপর নির্ভর করছে তাঁর অনাগত সন্তানের ভবিষ্যৎ।
সূত্র : বিবিসি ও দ্য ডেইলিমেইল অনলাইন।
Advertisements